টক দই এর উপকারিতা ও খাওয়ার নিয়ম জেনে নিন

টক দই এর উপকারিতা ও খাওয়ার নিয়ম জেনে নিন

টক দই এর উপকারিতা ও খাওয়ার নিয়ম জেনে নিন। আজকে আমরা জানবো টক দই খেলে আমাদের স্বাস্থ্যের কি উপকারিতা হয়। টক দই সম্পর্কে আমরা অনেকেই কিছু না কিছু জানি। টক দইয়ের মধ্যে এমন উপাদান রয়েছে যা আমাদের শরীরের জন্য স্বাস্থ্যকর এবং পুষ্টিগুণ। টক দই আমাদের দেহকে সুস্থ সবল রাখতে সহায়তা করে। আমরা শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য অনেকেই অনেক পন্থা অবলম্বন করে থাকি। বিশেষ করে আমরা পুষ্টিগুণ খাবারের প্রতি মনোযোগ দিয়ে থাকি। আর টকদই হচ্ছে পুষ্টিগুণ খাদ্যের মধ্যে অন্যতম একটি উপকারী খাদ্য।

টকদই শুধু পুষ্টি উপাদানের জন্যই নয়, এটি আমরা অনেক রান্নার আইটেমে ব্যবহার করে থাকি। সাধারণত বিরিয়ানি রান্নার ক্ষেত্রে টক দইয়ের ব্যবহার হয়। অর্থাৎ, রান্না এবং আমাদের শরীরে উপকারের জন্য টক দই অত্যন্ত উপকারী আমাদের জন্য। তাই আজকে আমরা টক দই এর উপকারিতা ও খাওয়ার নিয়ম নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করব।

 টক দই কি? টক দই এর উপকারিতা

প্রাথমিক অবস্থায় গাভীর দুধ চুলায় জাল দিয়ে হালকা বাদামী রং আসা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। এরপর কুসুম গরম থাকা অবস্থায় একটি মাটির পাত্র এর মধ্যে ডালতে হবে। হালকা টক জাতীয় কিছু যোগ করতে হবে দুধের সাথে যেমন লেবুর রস। দুধ জমাট বাঁধা পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হবে। যা টকদই নামে পরিচিত। টক দই আমাদের দুধের ঘাটতি পূরণ করতে সহায়তা করে। যা আমাদের দেহের জন্য অত্যন্ত উপকারী।

দুধের চেয়ে অধিক পরিমাণ ভিটামিন ও পুষ্টিকর উপকারিতা পাওয়া যায় টক দই থেকে। টক দই এর উপকারিতা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করব।

 > টক দই আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে। 

 > উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে টকদই এর ভূমিকা অপরিসীম। 

> টক দই আমাদের হ্যাঁড় ও দাঁতের মাড়ি মজবুত করে। 

 > হজম শক্তি বৃদ্ধি করার জন্য টক দই অত্যন্ত উপকারী। 

  > ওজন কমাতে ও কোষ্ঠকাঠিন্য নিয়ন্ত্রণে টক দই। 

টক দই এর উপকারিতা ও খাওয়ার নিয়ম জেনে নিন

আমরা সাধারনত টক জাতীয় খাবার গরম এর সময় খেতে পছন্দ করি। রাত অথবা সকাল এর চেয়ে দুপুরে খাওয়া বেশি পছন্দ করি টক দই। তার কারণ হচ্ছে দুপুর সময় রোদের আদ্রতা বেশি থাকে আরে সময় টক দই খেলে আমাদের পেট ও শরীর এর মধ্যে ঠাণ্ডা অনুভব হয়। এছাড়াও টক দই শরবত রেসিপি বানিয়ে খাওয়া যায়।

টক দই আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে

টক দইয়ের মধ্যে এমন কিছু পুষ্টিগুণ রয়েছে যা আমাদের দেহের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে সহায়তা করে। সাধারণত টক দই টক্সিন বা বিষাক্ত পদার্থ আমাদের শরীরে জমতে দেয় না যা আমাদের শরীরকে সুস্থ রাখে। তাই শরীরকে সুস্থ রাখার জন্য টক দই খেতে পারেন।

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে টকদই এর ভূমিকা অপরিসীম

নিয়মিত আমরা যদি টক দই খেতে পারি তাহলে আমাদের উচ্চ রক্তচাপের সম্ভাবনা খুবই কম থাকবে। পাশাপাশি আমাদের শরীরের কোলেস্টেরলের মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে। তাই খাবারের মেনুতে টকদই আপনি রাখতে পারেন।

টক দই খাওয়ার নিয়ম জেনে নিন

টক দই আমাদের হ্যাঁড় ও দাঁতের মাড়ি মজবুত করে

কথায় আছে, আমরা দাঁত থাকতে দাঁতের মর্যাদা বোঝি না। আর এই দাঁতকে সুস্থ ও সবল রাখার জন্য টক দই এর ভূমিকা গুরুত্বপূর্ণ। টক দই এ প্রচুর পরিমাণে ক্যালসিয়াম থাকায় হাড় ও দাঁতের গঠনে সহায়তা করে। এর জন্য আমাদের প্রতিনিয়ত টক দই খাওয়া উচিত।

হজম শক্তি বৃদ্ধি করার জন্য টক দই অত্যন্ত উপকারী

টক দই হজম শক্তি বৃদ্ধির জন্য একটি মহা ঔষধ। রাতের বেলায় টকদই খেলে আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য অত্যন্ত উপকার। টক দই আমাদের পেট ও শরীরের গরমের অনুভব থেকে কাটিয়ে উঠতে সহায়তা করে।

ওজন কমাতে ও কোষ্ঠকাঠিন্য নিয়ন্ত্রণে টক দই

আমাদের স্বাস্থ্যের উপকারের জন্য এমন কোন পুষ্টি গুণ নেই যে টক দইয়ের মধ্যে নেই। ওজন কমাতে ও কোষ্ঠকাঠিন্য নিয়ন্ত্রণে টক দই আমাদের জন্য পুষ্টিগুণসমৃদ্ধ। আমরা অনেকেই আছি দুধ পছন্দ করি না এর পরিবর্তে আপনি টক দই খেতে পারেন। টক দই এর মধ্যে দুধের চেয়েও পুষ্টিগুণ বেশি পাওয়া যায়।

শেষ কথাঃ 

এই ছিলো টক দই নিয়ে আজকের পোস্ট। আশা করি এই পোস্ট পড়ে আপনারা উপকৃত হবেন। আরো নিত্যনতুন স্বাস্থ্যবিষয়ক টিপস পেতে আমাদের পেজে চোখ রাখুন। সকলেই সুস্থ থাকবেন।

আরো দেখুনঃ

tech-007

Leave a Reply

Your email address will not be published.