মাকে নিয়ে উক্তি, স্ট্যাটাস, ক্যাপশন, পিকচার, ছবি,ও কবিতা

মাকে নিয়ে উক্তি, স্ট্যাটাস, ক্যাপশন, পিকচার, ছবি,ও কবিতা

মাকে নিয়ে উক্তি, স্ট্যাটাস, ক্যাপশন, পিকচার, ছবি,ও কবিতা। হাদীসে বর্ণিত আছে, মায়ের পায়ের নিচে সন্তানের স্বর্গ। এ কথার মাধ্যমে বুঝা যায়, মা আমাদের কতটা আপন, কতটা কাছের এবং কতটা আদরের। পৃথিবীতে যার মা বেঁচে নেই সেই বুঝতে পারে মা কেমন অমূল্য রত্ন। মা প্রত্যেক সন্তানের কাছে সবচেয়ে নিকটতম আপনজন। সন্তান সবচেয়ে নিরাপদ ও স্নেহ আদর পেয়ে থাকে মার কাছ থেকে। ১০ মাস ১০ দিন মায়ের গর্ভে কষ্ট করে আমাদেরকে আগলে রাখেন।

মায়ের কষ্টের অবদান সন্তানের শরীরের চামড়া দিয়েও শোধ করা যাবে না। আর এই পৃথিবীর বুকে মা হচ্ছে সবচেয়ে শ্রেষ্ঠ। পৃথিবীর বুকে মা হচ্ছে প্রথম শিক্ষক, যার কাছ থেকে আমরা সর্বপ্রথম কথা বলতে শিখেছি। তাই ছোট থেকে বড় হওয়া পর্যন্ত লালন পালন করেছেন তিনি হলেন আমার মা। তাই আজকে আপনাদের সামনে মাকে নিয়ে উক্তি স্ট্যাটাস ক্যাপশন পিকচার ছবি ও কবিতা তুলে ধরব।

মাকে নিয়ে উক্তি

অনেকেই আমরা মাকে নিয়ে উক্তি খুঁজে থাকি। তাদের কথা চিন্তা করে মাকে নিয়ে আমরা কিছু বাছাই কৃত উক্তি আপনাদের সামনে উপস্থাপন করা হয়েছে। এখান থেকে আপনারা মাকে নিয়ে উক্তি সংগ্রহ করে নিতে পারেন। তাই নিম্নে থেকে উক্তি গুলো পরে আসুন।

> মাকে তুই কষ্ট দিয়ে,করিস নারে ভুল,মা হারালে হারাবি তুই,আল্লাহ রাসুল,তুই যতই পারস,মার যত্ন সেবা কর,মা তখন হবে আপন যখন সবাই হবে পর।

> মা হলো স্নেহের ভান্ডার, যা কখনও নিঃশেষ হয় না।
(রেদোয়ান মাসুদ) 

> মা আমাদের সবসময় এটা বুঝাতে চাইতেন যে জীবনের চরম কষ্টের মূহুর্তগুলো তোমাদের হাসির কোন গল্পের অংশ হয়ে যাবে এক সময়।
( নোরা এফ্রন) 

> তুমি আমাকে শিক্ষিত মা দাও, আমি তোমাকে শিক্ষিত জাতি দিবো।
( নেপোলিয়ন বোনাপার্ট)

> আমার বসার ঘরের দেয়ালে আমার মায়ের ছবি টাঙানো আছে, কারণ তিনিই আমার কাছে সবচেয়ে বড় আকর্ষণ।
( এলেন ডে জেনেরিস) 

> মা হল পৃথিবীর একমাত্র ব্যাংক, যেখানে আমরা আমাদের সব দুঃখ, কষ্ট জমা রাখি এবং বিনিময়ে নিই বিনা সুদে অকৃত্রিম ভালবাসা।
( হুমায়ূন আহমেদ) 

> পৃথিবীতে তোমার হাজার হাজার বন্ধু-বান্ধব,আত্মীয়-স্বজন ও শুভাকাঙ্ক্ষী থাকবে, কিন্তু সবশেষে তুমি একজন মানুষকেই খুজে পাবে, যাকে তুমি শত আঘাত দেওয়ার পরেও সে শুধু তোমার ভবিষ্যত নিয়েই ভাবে, আর তিনি হলেন মা।
( রেদোয়ান মাসুদ)

> মায়ের প্রতি ভক্তিদৃষ্টি হতে পুণ্য হতে পারে না। প্রতিবার মায়ের দিকে যত্নের দৃষ্টিতে তাকানোর জন্য একটি কবুল হজ্জের সাওয়াব লিখে দেয়া হয়।
( বুখারি শরিফ) 

> মা হচ্ছে সন্তানের আদর্শ বিদ্যা নিকেতন। মায়ের আদর অতুলনীয়। মা হতে গিয়ে যে মারা যায় ইসলামে তাকে শহীদের মর্যাদা দিয়েছে।
(বুখারি শরিফ) 

> কোন একটা বিষয় মায়েদেরকে দুইবার ভাবতে হয়–একবার তার সন্তানের জন্য আরেকবার নিজের জন্য।
(সোফিয়া লরেন) 

মাকে নিয়ে স্ট্যাটাস

মা পৃথিবীর সবচেয়ে বড়ো আপনজন। মাকে আমরা শ্রদ্ধা এবং প্রকৃত ভালোবাসা দিয়ে তাদের মন জয় করে নিব। আর মায়ের মন জয় করতে হলে আপনাকে কিছু মাকে নিয়ে স্ট্যাটাস বেশি করে পড়তে হবে। তাহলে আপনার মাঝে মায়ের প্রতি ভালোবাসা বৃদ্ধি পাবে। আমাদের এই পেজে মাকে নিয়ে স্ট্যাটাস গুলো দেখানো হলো।

> পৃথিবীতে সবচেয়ে সুখ হল মায়ের আঁচল দিয়ে চোখের জল মুছা, আর পৃথীবিতে সবচেয়ে কষ্ট হল মায়ের চোখের জল দেখা।

> কষ্ট বুকে চেপে একলা থাকি,, কান্নার নোনাজল অধরে মাখি,, লাভ কি বৃথা মনে কষ্ট চেপে,, আয় না ফিরে তুই আমারি বুকে..!!

> আমি বোকা হতে পারি, অনেক খারাপ ছাত্র হতে পারি, দেখতে অনেক কালো হতে পারি, কিন্তু আমার মায়ের কাছে আমিই শ্রেষ্ঠ সন্তান।

> মা দিয়ে মাসজিদ। মা দিয়ে মাদ্রাসা। মা দিয়ে মাদিনা। মা দিয়ে মাক্কা। সো মা কে কেউ কষ্ট দিয় না।

> ভালোবাস তাকে যার কারনে পৃথিবী দেখেছো। ভালোবাস তাকে। যে তোমাকে ১০মাস ১০দিনগর্ভে রেখেছে। ভালোবাস তাকে যার পা এর নিচেতোমার জান্নাত আছে। তিনি হলেন মা। 

মাকে নিয়ে ক্যাপশন

আপনারা যারা মাকে নিয়ে ক্যাপশন ইন্টারনেটে সার্চ করছেন তাদের জন্য আমাদের এই পেজে বাছাইকৃত কয়েকটি মাকে নিয়ে কেপশন তুলে ধরা হলো। আপনারা এখান থেকে মাকে নিয়ে ক্যাপশন সংগ্রহ করতে পারেন। এবং মায়ের প্রতি অধিক ভালোবাসা অর্জন করে নিতে পারেন ক্যাপশন গুলি পড়ে।

> যারা প্রেমের জন্য নিজেরজীবন দিতে প্রস্তুত,তাদেরকে বলছি..পারলে একটু মন থেকেবলুন মা এর জন্যজীবন দিতে পারি মা ইতো আপনের আপন। 

> মা তোমায় ভালোবাসি কোথায় যেনো একটা টানে তোমার কাছে আসি মা. তোমায় ভালোবাসি তোমার জন্য মাগো আমারআলোর ভুবন দেখাতোমার হাতেই। আমার নিয়ত আমার ভাগ্য লেখা তোমায় ছেড়ে আমি মাগোনা যেনো যাই দূরে তোমার গায়ে গন্ধ যেনো আমার গায়ে বাজে সুরে সুরে মাগো তোমায় ভালোবাসি।

> বটের ডালে কুকিল বসে গাইছে কূহু গান, মাটির টানে মায়ের টানে কান্দে আমার প্রান । আছি আমি অনেক দুরে, পাইনা মায়ের দেখা| লক্ষ মানুষের ভিরেও যেন আমি শুধু এক। 

> ঘুমের মধ্যে স্বপনে দেখি, মায়ের সুন্দর মুখ । ঘুম ভাংলে চেয়ে দেখলে কেঁদে ওঠে বুক। মায়ের দেয়া শিতল ছায়া পাইনা খুজে আর| মায়ের জন্য মন কাঁদলেও পাইনা দেখা তার। মাকে আমি ভালবাসি সবার চেয়ে বেশি, মা থাকলে দুঃখের সমায় ফুটে মুখে হাসি।

> যার ললাটের ঐ সিঁদুর নিয়ে ভোরের রবি ওঠে .. আলতা রাঙ্গা পায়ের ছোঁয়ায় রক্ত কোমল ফোটে। সেই যে আমার মা, যার হয়না তুলনা।

> মা কখনো হয়না পর যতই আসুক তুফান ঝড়অন্যের ভালোবাসা হতে পারে ছলনা কিন্তু মা এর ভালোবাসা পৃথিবীর কোন কিছুর সাথে হয়না তুলনা.I LOVE YOU মা। 

> মা মা মমতার মহল, মা পিপাসার জল, মা ভালবাসার সিন্ধু, মা উত্তম বন্ধু, মা ব্যাথার ঔষুধ, মা কষ্টের মাঝে সুখ, মা চাঁদের ঝিলিক, মা স্বর্গের মালিক।

> শুধু বদলে যাননি আমার মা !অনেক কিছুই বদলে গেছে। আগের মত সবাই আর একসাথে বসে নাস্তা করা হয় না। রাতের বেলা বাসায় ফিরলে সবার মুখগুলো একসাথে দেখা হয় না। সময় জটিলতার কারনে বাবা র সাথে দেখাও হয় দু একদিন পর। কিন্তু আমার মা জননি বদলে যাননি। এখনো বৃষ্টির দিনে মা আমার পছন্দের খাবার খিচুড়ি রান্না করেন। আজ ও তাই। খুব একটা অবাক হইনি। কিন্তু একটা বেপার মারাত্মক ভাল্লাগসে।আমার মৃত দাদা র বয়সী এক ভিক্কুক বাসায় ভিক্ষার জন্যে আসলে আম্মা তাকে ভিতরে ডেকে খাওয়ালেন সেই খিচুড়ি।আহা ! আমার মা বদলে যাননি !!!

মাকে নিয়ে পিকচার ও ছবি

মাকে নিয়ে পিকচার ও ছবি আমাদের এই পেজে সুন্দর করে সাজিয়ে তুলে ধরা হলো। নিম্নে থেকে মাকে নিয়ে পিকচার ও ছবি দেখে আসুন।

মায়ের পিকচার 

মাকে নিয়ে কবিতা

মাকে আমরা কে না ভালোবাসি। পৃথিবীর সমস্ত কিছু দিয়েই মাকে আমরা ভালোবাসার চেষ্টা করি। আজ আপনাদের সামনে মাকে নিয়ে সুন্দর সুন্দর কবিতা তুলে ধরা হলো। এই পেজ থেকে মাকে নিয়ে কবিতা পেয়ে যাবেন।

মাতৃভক্তি-কালিদাস

বায়েজিদ বোস্তামী-

শৈশব হতে জননীর সেবা করিতেন দিবাযামী।

দুপুর রাত্রে জননী জাগিয়া ডাকিলেন,’বাছাধন,

বড়ই পিয়াস পানি দাও’ বলি মুদিলেন দু’নয়ন।

দেখিল বালক ঘরের কোণের কলসিতে নেই পানি,

বহুদূর পথ ঝরনা হইতে কলসি ভরিয়া আনি।

মায়ের তৃষ্ণা মিটাইবে বলি গভীর অন্ধকারে

ছুটিয়া বাহির হইল একাকী কলসি লইয়া ঘাড়ে।

জল ঢালি পিয়ালায়

সুপ্তা মাতার নয়ন শিয়রে দাঁড়ায়ে রহিল ঠায়।

ভাঙালে নিদ্রা হবে অপরাধ, কখন ভাঙিবে নিঁদ,

সেই ভরসায় পানি হাতে খাঁড়া রহিল যে বায়েজিদ।

পূর্ব গগন ফর্সা হইল,ডাকিয়া উঠিল পাখি,

জননী মেলিল আঁখি।

দেখিল শিয়রে দাঁড়ায়ে রয়েছে দশ বছরের ছেলে

পানি হাতে কেন, বুঝিল না মাতা প্রথম নয়ন মেলে।

সহসা পড়িল মনে,

গভীর রাতে পিপাসায় পানি চেয়েছিল বাছাধনে।

কহিল মা, মরি মরি!

বাছারে আমার, পানি হাতে করে সারা রাত্রটি ধরি

দাঁড়াইয়া আছ? ঘুমাওনি আজ?’ চোখে এল জল ভরি।

পুত্রেরে কোলে নিয়ে মা চুমিল বার বার মুখখানি।

কহিল জননী,’নয়নের মণি, সাধারণ শিশু নও,

খোদার দোয়ার বরকতে তুমি জগতপূজ্য হও।

পুত্র গরবে গর্বিত বুকে,খোদা, স্মরি তব নাম,

তোমারে আমার জীবনের এই সম্বল সঁপিলাম।’

বিফল হয়নি মায়ের আশিস, হৃদয়ের প্রার্থনা

জগৎ-বন্দ্য জ্ঞানগুরুদের বায়েজিদ একজনা।

কত ভালোবাসি
— কামিনী রায়

জড়ায়ে মায়ের গলা শিশু কহে আসি,-
“মা, তোমারে কত ভালোবাসি!”
“কত ভালবাস ধন?” জননী শুধায়।
“এ-ত।” বলি দুই হাত প্রসারি’ দেখায়।
“তুমি মা আমারে ভালবাস কতখানি?”

মা বলেন “মাপ তার আমি নাহি জানি।”
“তবু কতখানি, বল।”
“যতখানি ধরে
তোমার মায়ের বুকে।”
“নহে তার পরে?”
“তার বাড়া ভালবাসা পারি না বাসিতে।”
“আমি পারি।” বলে শিশু হাসিতে হাসিতে!

মা
— কাজী নজরুল ইসলাম

যেখানেতে দেখি যাহা
মা এর মত আহা
একটি কথায় এত সুধা মেশা নাই,
মায়ের মতন এত আদর সোহাগ সেতো
আর কোনোখানে কেহ পাইবে না ভাই।

হেরিলে মায়ের মুখ
দুরে যায় সব দুঃখ
মায়ের কোলেতে শুয়ে জোরায় পরান
মায়ের শিতল কোলে
সকল যথনা ভুলে
কতনা সোহাগে মাথা বুকটি ভরান।

যখন জন্ম নিনু
কতই না অসহায় ছিনু
কাঁদা ছারা নাহি জানিতাম কিছু
ওঠা বসা দূরে থাক
মুখে নাহি ছিল বাক,
চাহনি ফিরত শুধু মা এর পিছু পিছু।

পাঠশালা হাতে যবে
ঘরে ফিরে যাব সবে।
কতনা আদরে কোলে তুলে নেবে মাতা।
খাবার ধরিয়ে মুখে
শুনাবেন কত সুখে।
কত আজ লেখা হলো পড়া কত পাড়া।

পড়ালেখা ভালো হলে
দেখে সে কত ছলে
ঘরে ঘরে সে আমার কত নাম করতো,
বলে মোর সোনিমণি হিরার মানিকের খনি
এমনটি কারো শুনে বুক ভরে।

মনে-পড়া

রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

মাকে আমার পড়ে না মনে।

শুধু কখন খেলতে গিয়ে হঠাৎ অকারণে

একটা কি সুর গুনগুনিয়ে কানে আমার

বাজে,

মায়ের কথা মিলায় যেন আমার

খেলার মাঝে।

মা বুঝি গান গাইত আমার দোলনা

ঠেলে ঠেলে-

মা গিয়েছে, যেতে যেতে গানটি

গেছে ফেলে।

মাকে আমার পড়েনা মনে।

শুধু যখন আশ্বিনেতে ভোরে

শিউলিবনে

শিশির-ভেজা হাওয়া বেয়ে ফুলের

গন্ধ আসে

তখন কেন মায়ের কথা আমার মনে

ভাসে।

কবে বুঝি আনত মা সেই ফুলের সাজি

বয়ে-

পূজোর গন্ধ আসে যে তাই মায়ের গন্ধ

হয়ে।

মাকে আমার পড়ে না মনে।

শুধু যখন বসি গিয়ে শোবার ঘরের

কোণে,

জানলা থেকে তাকাই দূরে নীল

আকাশের দিকে-

মনে হয় মা আমার পানে চাইছে

অনিমিখে।

কোলের পরে ধরে কবে দেখত আমায়

চেয়ে,

সেই চাউনি রেখে গেছে সারা

আকাশ ছেয়ে।

মাকে নিয়ে কিছু কথা 

মাকে নিয়ে আমরা কিছু কথা বলতে চাই। আর তা হচ্ছে পৃথিবীর একমাত্র আপনজন মা। তাই নিম্নে কিছু মাকে নিয়ে কথা বলা হলো।

>  মা-মা “মমতার মহল” মা “পিপাসার জল” মা “ভালবাসার সিন্ধু” মা “উত্তম বন্ধু” মা “ব্যাথার ঔষুধ” মা “কষ্টের মাঝে সুখ” মা “চাঁদের ঝিলিক” মা

> পৃথীবিতে কেউ’ই স্বার্থহীন নয়,প্রতিটি সর্ম্পকেই কম-বেশী স্বার্থ থাকে,শুধু মাত্র মায়ের ভালবাসা টাই নিঃশ্বার্থ,একজন “মা”ই পারেন সন্তান কে কোন স্বার্থ ছাড়া ভালবাসতে”

> বটের ডালে কুকিল বসে গাইছে কূহু গান, মাটির টানে মায়ের টানে কান্দে আমার প্রান | আছি আমি অনেক দুরে, পাইনা মায়ের দেখা| লক্ষ মানুষের ভিরেও যেন আমি শুধু একা| ঘুমের মধ্যে স্বপনে দেখি, মায়ের সুন্দর মুখ | ঘুম ভাংলে চেয়ে দেখলে কেঁদে ওঠে বুক | মায়ের দেয়া শিতল ছায়া পাইনা খুজে আর| মায়ের জন্য মন কাঁদলেও পাইনা দেখা তার| মাকে আমি ভালবাসি সবার চেয়ে বেশি, মা থাকলে দুঃখের সমায় ফুটে মুখে হাসি|

> আমার মা যখন হাসে, তখন আমার খুব ভালো লাগে। কিন্তু যখন মা আমার কারনে হাসে, তখন আরো বেশি ভালো লাগে”

> মা তোমায় ভালোবাসিকোথায় যেনো একটা টানে তোমার কাছে আসিমা তোমায় ভালোবাসিতোমার জন্য মাগো আমারআলোর ভুবন দেখাতোমার হাতেই আমার নিয়তআমার ভাগ্য লেখাতোমায় ছেড়ে আমি মাগোনা যেনো যাই দূরেতোমার গায়ে গন্ধ যেনোআমার গায়ে বাজে সুরে সুরেমাগো তোমায় ভালোবাসি

> প্রথম স্পর্শ “মা”প্রথম পাওয়া “মা”প্রথম শব্দ “মা”প্রথম দেখা “মা”আমার জান্নাত তুমি “মা”

সর্বশেষ বাণীঃ 

সবার কাছে একটি অনুরোধ রইল মাকে নিয়ে আমাদের এই পোস্টটি যদি ভালো লেগে থাকে তাহলে সবার মাঝে শেয়ার করতে পারেন। আর পৃথিবীর বুকে যার মা আছে তারা সকলেই মার খেদমত করবেন। আর এটাই থাকবে আপনাদের সকলের কাছে প্রত্যাশা। সাথে থাকার জন্য সকলকে ধন্যবাদ।

আরো দেখুনঃ

tech-007

Leave a Reply

Your email address will not be published.